সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৬:০৩ পূর্বাহ্ন

এমসি কলেজে গণধর্ষণ: আসল মদদদাতা তারেক গ্রেফতার।

রিপোটারের নাম / ৩৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ডেস্ক সংবাদ।

সিলেটের এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে গৃহবধূকে গণধর্ষণ মামলার ২নং আসামি তারেকুল ইসলাম তারেককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান (র‌্যাব)। ২৯ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-৯ এর সদস্যরা।

 র‌্যাব-৯ এর মিডিয়া অফিসার এএসপি ওবাইন গণমাধ্যমের কাছে এই তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, তারেককে গ্রেপ্তার করার পর সিলেটে নিয়ে আসা হচ্ছে। নিয়ে আসার পর আইনি প্রক্রিয়া শেষে তাকে মামলা সংশ্লিষ্টদের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলেও জানান তিনি।

এদিকে গ্রেপ্তার এড়াতে তারেক বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করেন বলে জানা গেছে। এমনকি চুল ও দাড়ি ফেলে নিজের রূপ পরিবর্তনের চেষ্টাও করেন তিনি। এরপর পরও ফাঁকি দিতে পারেননি তারেক। ধরা পড়েন র‌্যাবের কাছে।

তারেককে নিয়ে এই মামলার ৬ আসামিসহ মোট আটজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ইতোমধ্যে আগে গ্রেপ্তার হাওয়া ৬ আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিন করে রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, উল্লেখ্য, গত ২৫ সেপ্টেম্বর, শুক্রবার সন্ধ্যায় শহরের টিলাগড় এলাকায় স্বামীর সাথে প্রাইভেটকারে ঘুরতে যান দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ি এলাকার ওই তরুণী। তারা বেশ কিছুক্ষণ মুরারিচাঁদ (এমসি) কলেজ ক্যাম্পাসে সময় কাটান।

অভিযুক্ত ৫-৬ জন ছাত্রলীগ কর্মী এসময় ওই তরুণীকে জোরপূর্বক উঠিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। এতে তার স্বামী প্রতিবাদ করলে ওই যুবকরা তাকে স্বামীকে মারধর শুরু করেন। এর এক পর্যায়ে তরুণী ও তার স্বামীকে ওই যুবকেরা এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে তুলে নিয়ে যান। সেখানে স্বামীকে বেঁধে রেখে একটি কক্ষে চার যুবক ওই তরুণীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন।

খবর পেয়ে রাত সাড়ে ১০টার দিকে ছাত্রাবাস থেকে ওই দম্পতিকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরে মধ্যরাতে ধর্ষণের শিকার তরুণীকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়।

এদিকে ধর্ষণের ঘটনার পরপরই আওয়ামী লীগের স্থানীয় কয়েকজন নেতা এটি ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। প্রথমদিকে গণমাধ্যমকর্মীরাও ঘটনার সংবাদ পাননি। এতে সময়ক্ষেপণ হলে অভিযুক্ত সকলেই পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

এদের সকলেই ছাত্রাবাসে জুয়া ও মাদকের আসর বসাতো বলে স্থানীয় সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে। এছাড়া এরাই টিলাগড় ও বালুচর এলাকায় ছিনতাইয়ের সাথেও জড়িত। করোনা পরিস্থিতির কারণে বন্ধ থাকা কলেজ ছাত্রাবাসে এরা প্রতিদিন বিকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত মাদক-জুয়ার আড্ডা বসাতো


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

আমাদের পরিবার

প্রকাশনা সম্পাদক :আব্দুছ ছালাম সবুজ প্রধান সম্পাদক:মোহাম্মদ আজাহারুল হক সম্পাদক:এস, এম, মোমতাজ উদ্দিন যুগ্ম সম্পাদক :রোবেল মাহমুদ বার্তা সম্পাদক:ফরিদুল আলম সজীব মফস্বল সম্পাদক:সারুয়ার ফরাজী নির্বাহী সম্পাদক:আনিন চিপ রিপোটার:লিয়াকত আলী